সময় হলে জানতে পারবেন শপথ কেন নেওয়া : ফখরুল

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের একক সিদ্ধান্তে দলটির চারজন বিজয়ী গতকাল সোমবার শপথ গ্রহণ করলেন। প্রশ্ন উঠেছে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও তাহলে কি শপথ নিচ্ছেন?

শপথ নেবেন কি না এ বিষয়ে দৈনিক আমাদের সময়কে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সময় আসুক জানতে পারবেন। আমি কি করেছি না করেছি আপনারা সময় হলেই জানতে পারবেন।’

কেন সংসদে যাওয়ার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন? এমন প্রশ্নে জবাবে ফখরুল বলেন, ‘আমরা পরিষ্কার করে বলেছি কোন পরিস্থিতিতে আমরা আগের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেছি।’ কোনো চাপে কি এই পরিবর্তন হয়েছে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘না কোনো চাপে নয়।’

সরকারের সঙ্গে কোন ধরনের সমঝোতায় আপনারা সংসদে যাওয়ার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রশ্ন করা হলে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সমঝোতার প্রশ্ন কোথায় দেখলেন আপনারা। আমরা বলছি যে, সংসদের ভেতরে ও বাইরে আমরা এই দাবিটা করে যেতে চাই। সংসদ একটা জায়গা যেখানে একটা স্পেস আছে। সেই কথা বলার জন্য আমাদের যারা নির্বাচিত তারা শপথ নিয়েছেন।’

আরো পড়ুন :   প্রধানমন্ত্রীর দোয়া কবুল হওয়ায় ফণী ক্ষতি করতে পারেনি

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ বিকেলে বলেছেন যে সরকারের চাপে শপথ গ্রহণ করেছেন এমপিরা। এ প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘সেটা শপথ গ্রহণের আগের বক্তব্য ছিল। তাহলে কী আপনাদের ওপর কোনো চাপ ছিল না? ফখরুল বললেন, ‘আমরা মহাচাপে আছি। গণতন্ত্রের লেশমাত্র নেই, আমাদের কথা বলতে দেওয়া হয় না। এই চাপ তো আছেই। আমাদের নেত্রী জেলে। এসব সরকারের চাপ নয় কী?’

‘সংসদে যাওয়ার সিদ্ধান্ত কী নির্বাচনকে বৈধতা দেওয়া নয়’ এর জবাবে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের বৈধতা দেওয়ার প্রশ্নই উঠে না। আমরা এই সংসদ বৈধতা দিচ্ছি না।’

বিএনপির জ্যেষ্ঠ এই নেতা বলেন, ‘পলিটিক্সে আজকে যেটা হবে, কালকে তা হবে এমন তো মানে নেই। আমি বলেছি, অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে পরিবর্তন তো করতে হতে পারে- সেটাই পলিটিক্স। আমাদের যেটার প্রয়োজন দলের জন্য, রাজনীতির জন্য, দেশের জন্য সেটাই আমরা করছি।’

আরো পড়ুন :   'নেত্রী জেলে থাকবেন, আর আমরা সংসদে গিয়ে কী মজা নেব?'

কারও কারও ধারণা, শপথগ্রহণের সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারামুক্তির বিষয়টির যোগসূত্র আছে। হয়তো দলীয় নেত্রীর মুক্তি প্রশ্নে আকস্মিক এ সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। এ জন্য পর্দার আড়ালে কোনো সমঝোতার কথাও শোনা যায়।

আজ মঙ্গলবার উচ্চ আদালতে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় তার জামিন শুনানি আছে। এর পরই বিষয়টি পরিষ্কার হবে বলে মনে করছেন নেতাকর্মীরা।