1. himucinemakhor1@gmail.com : Himel Himu : Himel Himu
  2. hridoyahammed2018@gmail.com : hridoyahmmed :
  3. jubayer.jay@gmail.com : Jubayer Ahmed : Jubayer Ahmed
  4. mdridoysamrat2014@gmail.com : samrat :
  5. shahabuddin1234@gmail.com : Suheb Khan : Suheb Khan
  6. admin@sylhetmail24.com : সিলেটমেইল২৪ ডটকম :
শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন

পরিসংখ্যানে বাংলাদেশ-নিউ জিল্যান্ড

  • প্রকাশিত : বুধবার, ৫ জুন, ২০১৯
  • ৪৬ বার পড়া হয়েছে

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে টাইগাররা নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে নিউ জিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে লন্ডনের দ্য ওভাল স্টেডিয়ামে। বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় শুরু হবে ম্যাচটি। দু’দলই নিজেদের প্রথম ম্যাচ জিতে আছে বেশ আত্মবিশ্বাসী মুডে। বাংলাদেশ তাদের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়েছে ১৪ রানের ব্যবধানে। আর নিউ জিল্যান্ড ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে জিতেছে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।

দুই দলের অবস্থান: আইসিসির প্রকাশিত সবশেষ র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের থেকে ঢের এগিয়ে নিউ জিল্যান্ড। টাইগারদের থেকে তিন ধাপ এগিয়ে কিউইদের অবস্থান র‍্যাংকিংয়ের চতুর্থ স্থানে। অন্যদিকে বাংলাদেশের অবস্থান সাত নম্বরে। রেটিং পয়েন্টের ব্যবধানটিও নেহাত কম নয় দু’দলের। ১১৩ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে আইসিসির ওডিআই র‍্যাংকিংয়ে ৪র্থ স্থানে আছে কিউইরা, সেখানে টাইগারদের রেটিং পয়েন্ট ৯০, যা ব্ল্যাক ক্যাপসদের থেকে ২৩ কম।

মাঠের লড়াইয়ে এখন আর পিছিয়ে নেই বাংলাদেশ। ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের অবস্থান এখন দৃঢ়। বিশ্ব ক্রিকেটের পরশক্তিদের চোখে চোখ রেখে লড়াই করে টাইগাররা। যার প্রমাণ দেখা গেছে নিজেদের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষেই। শক্তিশালী প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে ১৪ রানের দারুণ জয় তুলে আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে টাইগার ক্রিকেটাররা।

ওডিআইয়ের লড়াইয়ে যে বাংলাদেশ পিছিয়ে নেই তা পরিস্কার আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজেই। আর বাংলাদেশ দলকে বাড়তি সাহস যোগাচ্ছে ক্রিকেটারদের সাম্প্রতিক ফর্ম। ব্যাটিংয়ের গোড়াপত্তনে তামিম ইকবালের সঙ্গী কে হবেন তা নিয়ে রীতিমতো যুদ্ধ চলছে সৌম্য সরকার আর লিটন দাসের মধ্যে। দু’জনই আছেন দারুণ ফর্মে। নিজেকে প্রমাণের লক্ষ্যে উজাড় করে খেলছেন এই দুই ক্রিকেটার। প্রথম ম্যাচে দলকে দারুণ সূচনা এনে দেন ওপেনার সৌম্য।

আর তিন নম্বর স্থানটা নিজের করে নিয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। আর মিডল অর্ডারের ভরসা মুশফিকুর রহিম আর মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ দুজনই আছেন নিজেদের সহজাত ফর্মে। বল হাতে অধিনায়ক মাশরাফির আছে দুর্দান্ত ফর্মে। আর আছেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান আর পরীক্ষিত সেনা রুবেল হোসেন। দারুণ ছন্দে আছে পুরো বাংলাদেশ ক্রিকেট দলটাই।

ধারাবাহিক পারফরম্যান্সের বিচার করলে নিউ জিল্যান্ডের মতো দল খুঁজে পাওয়া বেশ মুশকিল। তবে বিশ্বকাপের মঞ্চে ঠিক যেন নিজেদের মেলে ধরতে পারে না কিউইরা। ১৯৭৫ সালের প্রথম বিশ্বকাপ থেকে শুরু করে ২০১৯ সালের ১২তম বিশ্বকাপ পর্যন্ত সব গুলোতেই অংশ গ্রহণ করেছে ব্ল্যাক ক্যাপসরা। খেলেছেন সর্বোচ্চ সংখ্যক ছয় সেমিফাইনাল এবং একটি ফাইনালও।

সপ্তমবারের চেষ্টায় বিশ্বকাপের মঞ্চের ফাইনাল খেলে ২০১৫ সালে। তবে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হেরে বিশ্বকাপ শিরোপা অধরাই থেকে যায় কিউইদের।

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে কিউইদের উড়ন্ত সূচনা হয়েছে। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে জয় পেয়েছে তারা। ট্রেন্ট বোল্টের বোলিং তোপে প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কা মাত্র ১৩৬ রানে অলআউট হয়।

দারুণ ফর্মে আছেন কিউই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান রস টেইলরও। আর নিজেদের প্রথম ম্যাচে দুই ওপেনার মার্টিন গাপটিল আর কলিন মুনরোর ব্যাটে ভর করেই ১০ উইকেটের জয় পায় ব্ল্যাক ক্যাপসরা। সব মিলিয়ে দারুণ ফর্মে নিউ জিল্যান্ড দল।

ভেন্যু: লন্ডনের দ্য ওভালেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল টাইগাররা। আর এখানেই আফ্রিকাকে ১৪ রানে পরাজিত করে বিশ্বকাপে শুভ সূচনা করে টাইগাররা। ইংল্যান্ডের রাজধানী লন্ডনের দ্য ওভাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের এবারের বিশ্বকাপের যাত্রা শুরু আর দ্বিতীয় ম্যাচটিও এখানেও অনুষ্ঠিত হবে। প্রায় ২৫৫০০ জন দর্শক ধারণ ক্ষমতার স্টেডিয়াম দ্য ওভাল নির্মিত হয়েছিল ১৮৪৫ সালে। বর্তমানে দ্য ওভাল স্টেডিয়ামটি কিয়া ওভাল নামেও পরিচিত। বিজ্ঞাপনদাতা কিয়ার নাম অনুসারে নতুন এই নামকরণ করা হয়েছে। ওভালে এখন পর্যন্ত ১০টি বিশ্বকাপের ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১৯৭৩ সালে উইন্ডিজের বিপক্ষে দ্যা ওভালের একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে। ওভালে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ নিউ জিল্যান্ডের ৩৯৮ রান স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ইংল্যান্ডের ১০৩ রানের অল আউট হওয়ার ইনিংসটাই এই স্টেডিয়ামের সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ।

বিশ্বকাপে হেড টু হেড মোট ম্যাচ: ৪টি, বাংলাদেশ জয়ী: ০টি। নিউজিল্যান্ড জয়ী: ৪টি। মুখোমুখি দুই দল মোট ম্যাচ: ৩১টি। বাংলাদেশ জয়ী: ১০টি। দক্ষিণ আফ্রিকা জয়ী: ২১টি। ড্র: ০টি ম্যাচ পরিত্যক্ত: ০টি।

অনুগ্রহ করে শেয়ার করুন

আরো পড়ুন
© 2020 All rights reserved by sylhetmail multimedia
Develop By sylhetmail24.com